মেধাশক্তি বাড়ানোর উপায় জানুন, সেই সাথে খাবার ও ঔষধ এর নাম

আসসালামুয়ালাইকুম প্রিয় বন্ধুরা।  আজকে আপনাদের মাঝে স্বাস্থ্য বিষয়ক একটি লেখা নিয়ে হাজির হয়েছি। আপনি যদি মেধা শক্তিহীনতায় ভোগেন তাহলে এ পোস্টের মাধ্যমে অনেকটা উপকৃত হতে পারেন।  আজকে আমরা আলোচনা করব কিভাবে মতিস্ক এর শক্তি বৃদ্ধি করা যায়। আপনি যদি মেধা শক্তি বাড়ানোর উপায় খুঁজে থাকেন তাহলে এখান থেকে সংগ্রহ করতে পারবেন।

আমাদের মধ্যে অনেক লোকজন আছেন যাদের স্মৃতিশক্তি অনেক দুর্বল।  তারা অল্প সময়ের ভিতর পূর্ববর্তী বিষয়ের সবকিছু ভুলে যায়।  তাই আজকে আমরা এই পোস্টে মেধা শক্তি কিভাবে বাড়ানো যায় সে সম্পর্কে আলোচনা করব। এবং সেই সাথে আমরা মেধা শক্তি বাড়ানোর  খাবার তালিকা এবং কিছু ওষুধের নাম ও শেয়ার করব।

স্মৃতিশক্তি লোপ পাওয়ার কারণ

আপনি যদি আপনার মস্তিষ্কের স্মৃতিশক্তি বাড়াতে চান তাহলে আপনাকে সর্ব প্রথমে জানতে হবে কী কারণে স্মৃতিশক্তি লোপ পায়।  এসকল কারণ চিহ্নিত করার পর আপনি কাজ গুলো এড়িয়ে চলুন, আশা করি আপনার স্মৃতিশক্তি অনেকাংশেই বৃদ্ধি পাবে।  তাহলে চলুন নিচের অংশ হতে স্মৃতিশক্তি লোপ পাওয়ার কারণ গুলো জেনে নেই।

– কম সময় ধরে ঘুমের অভ্যাস স্মরণশক্তিকে দুর্বল করে দেয়

– ডিপ্রেশন বা হতাশা

– অতিরিক্ত মিষ্টি খাওয়া

– অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস

– একাকীত্ব

– উচ্চ রক্তচাপ

– অ্যালকোহল ইত্যাদি।

মেধাশক্তি বাড়ানোর উপায়গুলো কী কী

অনেকেই ইন্টারনেটে মেধা শক্তি বাড়ানোর উপায় গুলো জানতে চেয়েছেন।  তাই আমরা পোস্টের এই অংশে এখন আপনাদের সাথে কি কি উপায়ে আপনি আপনার মেধা শক্তি বাড়াতে পারেন তা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব।  দয়া করে নিচের দেওয়া তথ্যগুলো অনুসরণ করে আপনি আপনার স্মৃতিশক্তি বাড়িয়ে নিতে পারেন।

প্রতিদিনের অভ্যাস থেকে বেরিয়ে আসুন:

মস্তিষ্ক নির্জীব হওয়ার কারণে অনেক সময় স্মৃতিশক্তি লোপ পায়। তাই প্রতিদিন একই ধরনের কাজ না করে নতুন কিছু করার চেষ্টা করুন। আপনার প্রতিদিনের যেসকল অভ্যাস রয়েছে তা পরিবর্তন আনার অভ্যাস গড়ে তুলুন।

পায়ের আঙুলের ম্যাসাজ:

আপনি স্মৃতিশক্তি বাড়ানোর জন্য আপনার পায়ের আঙুলগুলো ম্যাসাজ করতে পারেন। কারণ আঙুলের সাথে সরাসরি মস্তিষ্কের কোষগুলোর সাথে সংযোগ স্থাপন করেছে।  আপনি আঙ্গুলের একদম মাথায় থেকে মেসেজ করতে করতে নিচের দিকে যাবেন।

যোগব্যায়ামঃ

যোগব্যায়াম আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ উপায় হচ্ছে মস্তিষ্কের স্মৃতিশক্তি বাড়ানো।  একদম ঘরোয়া  পরিবেশ মাথা ঠান্ডা নিজেকে নিয়ে ভাবুন।  নিজের  মস্তিস্ককে সময় দিন।

পর্যাপ্ত ঘুম:

ঘুমের মাধ্যমে আপনি আপনার  মস্তিস্ককে ঠান্ডা রাখতে পারেন এতে করে  আপনার ব্রেন অনেক ভালো কাজ করবে।রাতে যদি ভালো ঘুম না হয় তাহলে আপনি সারাদিন স্বাভাবিক কাজ গুলো চালিয়ে নিতে পারবেন না।  তাই রাতে  পর্যাপ্ত ঘুমানোর চেষ্টা করুন।

বিপরীত হাত ব্যবহারের অভ্যাস

আপনি কি জানেন আপনার বিপরীত হাত ব্যবহারের মাধ্যমে আপনার  মস্তিষ্ক কে সুস্থ রাখতে পারেন।  আপনি যদি সকল কাজ যেমন খাওয়া ব্রাশ করা লেখালেখি করা ইত্যাদি কাছে ডান হাতে করে থাকেন তাহলে চেষ্টা করুন এসব কাজগুলো সপ্তাহে অন্তত একবার বাম হাতে করার।

ঠাণ্ডা ঘর:

গরমের চেয়ে ঠাণ্ডায় স্মৃতিশক্তি এবং মনোযোগ তিন গুণ বেশি থাকে। এছাড়া ঠাণ্ডা ঘর মাথাকেও ঠাণ্ডা রাখে। তাই ঘরের তাপমাত্রা কখনো ২১ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি রাখা ঠিক নয়।

গল্প শেষ থেকে শুরু করুন:

একটি গল্প পড়া শেষে পুরো গল্পটা মনে রাখুন। এবার শুরু থেকে না করে শেষ বা পেছন থেকে গল্পটা মনে করতে থাকুন। এই পন্থা মস্তিষ্কের কোষগুলোকে সচল রাখার সঙ্গে সঙ্গে শক্তিশালীও করবে।

হাঁটাহাঁটি:

নিয়মিত হাঁটাহাঁটি এবং রং এর মাধ্যমে আপনার মস্তিষ্ক সুস্থ রাখতে পারেন। তাই নিয়মিত হাঁটাচলা  করার অভ্যাস তৈরি করুন।

মস্তিষ্কের খাবার:

মস্তিষ্কের কার্যাবলী সঠিকভাবে সম্পাদনের জন্য আমাদেরকে কিছু এক্সট্রা খাবারের প্রয়োজন।আখরোটের ‘পলিফেনলস’ ব্রেনের স্মৃতিশক্তি বাড়িয়ে দেয়। তাছাড়াও সামুদ্রিক মাছের ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড, পালংশাক, ডার্ক চকলেট, গ্রিন-টি, অলিভ অয়েল, শাকসবজি ইত্যাদি মস্তিষ্কের স্বাস্থ্যরক্ষায় খুবই জরুরি।

স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি করার ঔষধ

আমরা লক্ষ্য করেছি যে অনেকেই ইন্টারনেটে স্মৃতিশক্তি বাড়ানোর ঔষধের নাম খুঁজে বেড়াচ্ছেন।  আপনি যদি ঔষধ এর মাধ্যমে আপনার মস্তিষ্কের স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি করতে চান তাহলে হোমিওপ্যাথি এবং এলোপ্যাথিক উভয় ধরনের ওষুধ খুঁজে পাবেন।  এখন আমরা স্মৃতিশক্তি বাড়ানোর ওষুধের নাম গুলো জেনে নিব।  তবে একটি জেনে ভালো যে ঔষধের মাধ্যমে স্মৃতিশক্তি বাড়ানো মোটেই কাম্য নয়।

স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধির এলোপ্যাথিক ঔষধ

আপনি যদি আপনার  মস্তিষ্কের স্মৃতিশক্তি বাড়ানোর জন্য এলোপ্যাথিক ওষুধ খুঁজে থাকেন তাহলে আপনাকে অবশ্যই একজন বিশেষজ্ঞের সাথে কথা বলতে হবে।  বিশেষজ্ঞের দেওয়া প্রেসক্রিপশন অনুযায়ী আপনি ওষুধ সেবন করে আপনার মস্তিষ্কের স্মৃতিশক্তি বাড়াতে পারেন।   বিশেষজ্ঞের পরামর্শ ছাড়া কোনো অবস্থাতেই কোনরকম ওষুধ সেবন করা উচিত নয়।

স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধির হোমিওপ্যাথিক ঔষধ

অনেকেই স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধির জন্য হোমিও ওষুধের নাম জানতে চেয়েছেন।  আসলে নির্দিষ্ট করে বলা খুবই মুশকিল যে কোন ওষুধের মাধ্যমে আপনার স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি পেতে পারে।  তাই আপনাকে অবশ্যই একজন হোমিওপ্যাথিক ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করতে হয়। তার দেওয়া নির্দেশনাবলী অনুসরণ করেই আপনি আপনার মস্তিষ্কের স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি করতে পারবেন।

কি খেলে স্মৃতিশক্তি বাড়ে

আপনি যদি আপনার  মস্তিষ্কের স্মৃতিশক্তি ধরে রাখতে চান এবং বৃদ্ধি করতে চান  তাহলে আপনাকে অবশ্যই পুষ্টি সমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে।  এর পাশাপাশি  মস্তিষ্ক সুস্থ রাখার জন্য কিছু নিয়ম মেনে চলতে হবে।  এখন আমরা জানবো কি কি খাবারের মাধ্যমে আপনি আপনার স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি করতে পারেন।  সম্পন্ন খাবার তালিকাটি আমরা নিচে শেয়ার করলাম।

১। আখরোট

২। মাছ

৩। কফি

৪। ডিম

৫। ব্রাহ্মি শাক

৬। কাঠ বাদাম

৭। কাজু বাদাম

৮। কিসমিস

৯। কলা

১০। পেপে

সর্বশেষ কথা

আমাদের আজকের সম্পুর্ন পোস্ট টি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আশাকরি আমাদের আজকের এই পোস্টের মাধ্যমে আপনি আপনার মধ্যে শোকের স্মৃতি শক্তি কিভাবে বৃদ্ধি করতে পারবেন সে সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পেরেছেন।  দয়া করে পোস্টটি আপনার  বন্ধু-বান্ধবের মাঝে শেয়ার করুন যাতে তারাও কিভাবে স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি করতে হয় এ সম্পর্কে জানতে পারে।  স্বাস্থ্য  সম্পর্কিত আরও পোস্ট পেতে চাইলে নিচের দেওয়া লিংকে ভিজিট করতে পারেন।

আরও দেখুনঃ

মোটা হওয়ার সহজ প্রাকৃতিক উপায়

ঘরোয়া পদ্ধতিতে মোটা হওয়ার জন্য প্রতিদিনের খাদ্য তালিকা

খুব সহজে স্থায়ী ভাবে মোটা হওয়ার সহজ উপায় কি?

খুব সহজে মেয়ে পটানোর ডায়লগ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

%d bloggers like this: