আসতাগফিরুল্লাহ দোয়া আরবী বাংলা (অর্থসহ) – তওবার দোয়া বাংলা উচ্চারণ

আমাদের মধ্যে অনেকেই আস্তাগফিরুল্লাহ দোয়া আরবি উচ্চারণ বাংলা অর্থসহ জানতে ইচ্ছুক। তাই আজকের এই পোস্টে আমরা আপনাদের সাথে তওবার দোয়া বাংলা উচ্চারণ ও অর্থসহ শেয়ার করতে চলেছি।

পবিত্র কুরআন মাজীদ এবং অসংখ্য হাদিসে বেশি বেশি তাওবা ইসতেগফার করার ব্যাপারে তাগিদ দেয়া হয়েছে। কেননা গোনাহমুক্ত জীবনের অন্যতম উপায় হচ্ছে তাওবা ও ইসতেগফার করা। আল্লাহ তাআলা পবিত্র কুরআন মাজীদ ঘোষণা করেন-

وَمَن يَعْمَلْ سُوءًا أَوْ يَظْلِمْ نَفْسَهُ ثُمَّ يَسْتَغْفِرِ اللّهَ يَجِدِ اللّهَ غَفُورًا رَّحِيمًا

‘যে গোনাহ করে কিংবা নিজের অনিষ্ট করে, অতপর আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করে, সে আল্লাহকে ক্ষমাশীল, করুণাময় পায়।’ (সুরা নিসা : আয়াত ১১০)

আসতাগফিরুল্লাহ দোয়া আরবী বাংলা উচ্চারণ

আমাদের নবিজী হযরত মোহাম্মদ (সা.) বলেছেন, ‘তোমরা তোমাদের রবের কাছে তওবা করো এবং তাঁর কাছে ক্ষমা চাও। আমি প্রতিদিন ১০০ বার তওবা করি ও ক্ষমা চাই।’ সুতারাং বোঝাই যাচ্ছে, আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাওয়া কতটা জরুরি এবং আব্যশিক বিষয়। কারণ নিঃসন্দেহে মহান আল্লাহ ক্ষমাশীল ও পরম দয়ালু।

সুতরাং মুমিন মুসলমান হিসেবে আমাদের সকলের উচিত ইস্তেগফার পাঠ করা এবং মহান আল্লাহ তা’আলার নিকট ক্ষমা প্রার্থনা করা। আমরা লক্ষ্য করেছি যে অনেকেই ইন্টারনেটে আসতাগফিরুল্লাহ দোয়া আরবী বাংলা উচ্চারন খুঁজে বেড়ায়। তাই এখানে আমরা আপনাদের সাথে পাঁচটি ইস্তেগফার বাংলা উচ্চারণ ও অর্থসহ পড়ার নিয়ম শেয়ার করেছে।

(১) আরবী – أَستَغْفِرُ اللهَ
উচ্চারণ : ‘আস্তাগফিরুল্লাহ।’
অর্থ: আমি আল্লাহর ক্ষমা প্রার্থনা করছি।

পড়ার নিয়ম: আমাদের প্রিয় নবী হযরত মোহাম্মদ (সা.) প্রতি ওয়াক্ত ফরজ নামাজের সালাম ফেরানোর পর এই দোয়াটি ৩ বার পড়তেন।

(২) আরবী – أَسْتَغْفِرُ اللَّهَ الَّذِي لاَ إِلَهَ إِلاَّ هُوَ الْحَىُّ الْقَيُّومُ وَأَتُوبُ إِلَيْهِ
উচ্চারণ: ‘আস্‌তাগফিরুল্লা হাল্লাজি লা ইলাহা ইল্লা হুওয়াল হাইয়্যুল কইয়্যুমু ওয়া আতুবু ইলায়হি।’

অর্থ: ‘আমি ওই আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাই, যিনি ছাড়া প্রকৃতপক্ষে কোনো মাবুদ নেই, তিনি চিরঞ্জীব, চিরস্থায়ী এবং তাঁর কাছেই (তাওবাহ করে) ফিরে আসি।’ (আয়াতুল কুরসি)

পড়ার নিয়ম: দিনের যে কোনো ইবাদত-বন্দেগি তথা ক্ষমা প্রার্থনার সময় এভাবে তাওবাহ করতে পারেন। হাদিসে এসেছে- এভাবে তাওবাহ-ইসতেগফার করলে আল্লাহ তাআলা তাকে ক্ষমা করে দেবেন, যদিও সে যুদ্ধক্ষেত্র থেকে পলায়নকারী হয়।’ (আবু দাউদ, তিরমিজি, মিশকাত)

(৩) আরবী – أَسْتَغْفِرُ اللهَ وَأَتُوْبُ إِلَيْهِ

উচ্চারণ: আস্তাগফিরুল্লাহা ওয়া আতুবু ইলাইহি।

অর্থ: আমি আল্লাহর ক্ষমা প্রার্থনা করছি এবং তাঁর দিকেই ফিরে আসছি।

পড়ার নিয়ম: এ দোয়াটি প্রতিদিন ৭০/১০০ বার পড়া উচিত। নবীজী হযরত মোহাম্মদ (সা.) প্রতিদিন ৭০ বারের অধিক তাওবাহ ও ইসতেগফার করতেন।’ (বুখারি)

(৪) আরবী- اللَّهُمَّ أَنْتَ رَبِّي لَا إِلَهَ إِلَّا أَنْتَ خَلَقْتَنِي وَأَنَا عَبْدُكَ وَأَنَا عَلَى عَهْدِكَ وَوَعْدِكَ مَا اسْتَطَعْتُ أَعُوذُ بِكَ مِنْ شَرِّ مَا صَنَعْتُ أَبُوءُ لَكَ بِنِعْمَتِكَ عَلَيَّ وَأَبُوءُ لَكَ بِذَنْبِي فَاغْفِرْ لِي فَإِنَّهُ لَا يَغْفِرُ الذُّنُوبَ إِلَّا أَنْتَ

উচ্চারণ: আল্লাহুম্মা আংতা রাব্বি লা ইলাহা ইল্লা আংতা খালাক্কতানি ওয়া আনা আবদুকা ওয়া আনা আলা আহ্দিকা ওয়া ওয়াদিকা মাসতাতাতু আউজুবিকা মিন শাররি মা সানাতু আবুউলাকা বিনিমাতিকা আলাইয়্যা ওয়া আবুউলাকা বিজাম্বি ফাগ্ফিরলি ফা-ইন্নাহু লা ইয়াগফিরুজ জুনুবা ইল্লা আংতা।’

অর্থ: ‘হে আল্লাহ! তুমিই আমার প্রতিপালক। তুমি ছাড়া কোনো ইলাহ নেই। তুমিই আমাকে সৃষ্টি করেছ। আমি তোমারই বান্দা আমি যথাসাধ্য তোমার সঙ্গে প্রতিজ্ঞা ও অঙ্গীকারের উপর আছি। আমি আমার সব কৃতকর্মের কুফল থেকে তোমার কাছে আশ্রয় চাই। তুমি আমার প্রতি তোমার যে নেয়ামত দিয়েছ তা স্বীকার করছি। আর আমার কৃত গোনাহের কথাও স্বীকার করছি। তুমি আমাকে ক্ষমা করে দাও। কারন তুমি ছাড়া কেউ গোনাহ ক্ষমা করতে পারবে না।’

পড়ার নিয়ম: সকালে ও সন্ধ্যায় এ দোয়া পাঠ করা উচিত। কেননা হাদিসে এসেছে- যে ব্যক্তি এ ইসতেগফার সকালে পড়ে আর সন্ধ্যার আগে মারা যায় কিংবা সন্ধ্যায় পড়ে সকাল হওয়ার আগে মারা যায়, তবে সে জান্নাতে যাবে।’ (বুখারি)

(৫) আরবী- رَبِّ اغْفِرْ لِيْ وَتُبْ عَلَيَّ إِنَّكَ (أنْتَ) التَّوَّابُ الرَّحِيْمُ
উচ্চারণ : ‘রাব্বিগ্ ফিরলি ওয়া তুব আলাইয়্যা ইন্নাকা (আংতাত) তাওয়্যাবুর রাহিম।’

অর্থ : ‘হে আমার প্রভু! আপনি আমাকে ক্ষমা করুন এবং আমার তাওবাহ কবুল করুন। নিশ্চয় আপনি মহান তাওবা কবুলকারী করুণাময়।’

পড়ার নিয়ম: রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মসজিদে বসে এক বৈঠকেই এই দোয়া ১০০ বার পড়েছেন।’ (আবু দাউদ, ইবনে মাজাহ, তিরমিজি, মিশকাত)

আস্তাগফিরুল্লাহ অর্থ কি

আস্তাগফিরুল্লাহ শব্দটি সচরাচরই ব্যবহার করা হয়ে থাকে। কিন্তু আসলে কি আস্তাগফিরুল্লাহ অর্থ কি তা জেনে ব্যবহার করা হয়ে থাকে? আস্তাগফিরুল্লাহ অর্থ কি আপনি জানেন কি? আস্তাগফিরুল্লাহ অর্থ কি তা না জেনে ব্যবহার করছেন কি? আস্তাগফিরুল্লাহ অর্থ কি তা যদি আপনার না জানা থাকে তাহলে পোস্টটি  আপনার জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ। এখন আমরা জানবো আস্তাগফিরুল্লাহ অর্থ কি এবং এটি কখন পড়তে হয়।

আস্তাগফিরুল্লাহ অর্থ হলো আমি আল্লাহর ক্ষমা প্রার্থনা করছি। আল্লাহ এর ক্ষমা প্রার্থনা করতে আস্তাগফিরুল্লাহ ব্যবহার করা হয়। আপনি যদি কোন ভ্ল কাজ করে ফেলেন যা আল্লাহর চোখে ভালো কিছু নয় তাহলে আপনাকে সাথে সাথে আল্লাহর ক্ষমা প্রার্থনা ক্রতে হবে। আর এজন্য আপনাকে আস্তাগফিরুল্লাহ পড়তে হবে। তাই আস্তাগফিরুল্লাহ এর অর্থ কি তা জেনে আস্তাগফিরুল্লাহ পড়ুন। এতে করে আপনি আরো বেশি বেশি আস্তাগফিরুল্লাহ পড়তে পারবেন।

সর্বশেষ কথা

আজকের সম্পুর্ন পোস্ট টি পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আজকের এই পোস্টে আমরা আপনাদের সাথে আস্তাগফিরুল্লাহ দোয়া বাংলা অর্থসহ শেয়ার করার চেষ্টা করেছি। আশাকরি ইতোমধ্যে আপনি আমাদের আজকের এই পোস্টের মাধ্যমে তওবার দোয়া বাংলা অর্থসহ সংগ্রহ করতে পেরেছেন। আপনার যদি ভালো লাগে থাকে তাহলে সকলের সাথে শেয়ার করার অনুরোধ রইল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *