মঙ্গল শোভাযাত্রা ছবি, উদযাপনের কারণ ও ইতিহাস জানুন – বাংলা নববর্ষ ১৪২৯

প্রতিবছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউট কর্তিক আয়োজিত মঙ্গল শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়। বাংলা নববর্ষ পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে এই মঙ্গল যাত্রা অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। অনেকের মনে প্রশ্ন মঙ্গল শোভাযাত্রা কি এবং কেন এটি উদযাপন করা হয় এবং এর ইতিহাস কি। তাই আজকের পোস্টে আমরা মঙ্গল শোভাযাত্রা নিয়ে সম্পূর্ণ বিস্তারিতভাবে আলোচনা করার চেষ্টা করব। আশাকরি আমাদের আজকের পোস্ট এর মাধ্যমে মঙ্গল শোভাযাত্রা ইতিহাস সম্পর্কে বিশদভাবে জানতে পারবেন। এছাড়াও আমরা মঙ্গল শোভাযাত্রার কিছু ছবি আপনাদের মাঝে শেয়ার করব। তাহলে চলুন মঙ্গল শোভাযাত্রা নিয়ে আজকের পোস্ট শুরু করি।

মঙ্গল শোভাযাত্রা কি?

অনেকের মনে প্রশ্ন জাগতে পারে যে মঙ্গল শোভাযাত্রা কি। মঙ্গল শোভাযাত্রা প্রতিবছর বাংলা নববর্ষ অর্থাৎ একলা বৈশাখ নতুন বর্ষবরণ উৎসব হিসেবে পালিত হয়ে থাকে। এটি শুধুমাত্র বাংলাদেশে পালিত হয়ে থাকে এবং এটি একটি সামাজিক চর্চা অনুষ্ঠান। বাংলাদেশের ঢাকা শহরে বিংশ শতাব্দীর শেষভাগে মঙ্গল শোভাযাত্রার আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয়। এবং কি একই শতাব্দীর দ্বিতীয় দশকে এসে এটি সারা বাংলাদেশে একটি ধর্মনিরপেক্ষ ছড়িয়ে পড়ে। বাংলাদেশের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন প্রাক্তন শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের সহযোগিতায় প্রতিবছরই বাংলা নববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে পহেলা বৈশাখে ঢাকা শহরের শাহবাগ এলাকায় এই মঙ্গল শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়। এই শোভাযাত্রায় বিভিন্ন ধরনের প্রতীকী শিল্পকর্ম বাংলা সংস্কৃতির বিভিন্ন রঙের বিভিন্ন প্রাণীর প্রতিকৃতি নিয়ে হাজার হাজার শিক্ষার্থী এবং সাধারন মানুষ জমায়েত হয়।

মঙ্গল শোভাযাত্রার ইতিহাস

আমরা মঙ্গল শোভাযাত্রা সম্পর্কে জানলাম, এখন আমরা মঙ্গল শোভাযাত্রার ইতিহাস সম্পর্কে জানব। এছাড়াও অনেকেই ইন্টারনেটে মঙ্গল শোভাযাত্রার ইতিহাস সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন। তাহলে চলুন এখনই মঙ্গল শোভাযাত্রার ইতিহাস সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে জেনে নেই। ইংরেজি .১৯৮৯ সাল থেকে প্রতিবছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় চারুকলা অনুষদ কর্তৃক এই মঙ্গল শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। প্রতিবছর রমনার বটমূলে ছায়ানটের কর্তিক এই মঙ্গল শোভাযাত্রার আয়োজন করা হয়। ১৯৮০’র দশকে স্বৈরাচারী শাসনের বিরূদ্ধে সাধারণ মানুষের ঐক্য এবং একইসঙ্গে শান্তির বিজয় ও অপশক্তির অবসান কামনায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইন্সটিটিউটের উদ্যোগে ১৯৮৯ খ্রিষ্টাব্দে সর্বপ্রথম মঙ্গল শোভাযাত্রার প্রবর্তন হয়।

শোভাযাত্রার অনতম আকর্ষণ – বিশালকায় চারুকর্ম পুতুল, হাতি, কুমীর, লক্ষ্মীপেঁচা, ঘোড়াসহ বিচিত্র মুখোশ এবং সাজসজ্জ্বা, বাদ্যযন্ত্র ও নৃত্য। মাহবুব জামাল শামীম নামক শুরুরদিকের একজন অংশগ্রহণকারীর কাছ থেকে জানা যায়, পূর্বে এর নাম ছিল বর্ষবরণ আনন্দ শোভাযাত্রা। সেই সময়ের সংবাদপত্রের খবর থেকেও এমনটা নিশ্চিত হওয়া যায়। সংবাদপত্র থেকে যতোটা ধারণা পাওয়া যায়, ১৯৯৬ সাল থেকে চারুকলার এই আনন্দ শোভাযাত্রা মঙ্গল শোভাযাত্রা হিসেবে নাম লাভ করে। তবে বর্ষবরণ উপলক্ষে আনন্দ শোভাযাত্রা চারুকলায় ১৯৮৯ সালে শুরু হলেও এর ইতিহাস আরো কয়েক বছরের পুরানো। ১৯৮৬ খ্রিষ্টাব্দে চারুপীঠ নামের একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান যশোরে প্রথমবারের মতো নববর্ষ উপলক্ষে আনন্দ শোভাযাত্রার আয়োজন করে।

মঙ্গল শোভাযাত্রার ছবি

প্রতিবছর বাংলা নববর্ষকে বরণ করার উদ্দেশ্যে মঙ্গল শোভাযাত্রার আয়োজন করা হয়। শোভাযাত্রাটি প্রতিবছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদ কর্তৃক প্রাক্তন শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের দ্বারা অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। এই শোভাযাত্রার সময় অনেকেই ক্যামেরার মাধ্যমে ছবি বন্দি করে থাকে। আমরা লক্ষ্য করেছি যে অনেকেই গুগলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক আয়োজিত মঙ্গল শোভাযাত্রার ছবি খুঁজে বেড়ায়। তাই এখন আমরা আপনাদের সাথে একদম ফ্রিতে সম্পূর্ণ এইচডি কোয়ালিটির কিছু মঙ্গল শোভাযাত্রার ছবি শেয়ার করব। ছবি গুলো ডাউনলোড করার জন্য নিচের ডাউনলোড বাটনে ক্লিক করে সংগ্রহ করুন।

সর্বশেষ কথা

মঙ্গল শোভাযাত্রা নিয়ে আজকের পোস্টটি সম্পূর্ণ করার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আশা করি আপনারা আমাদের আজকের পোস্ট এর মাধ্যমে মঙ্গল শোভাযাত্রার ইতিহাস উদযাপনের কারণ এছাড়াও মঙ্গল শোভাযাত্রার কিছু ছবি খুঁজে পেয়েছেন। আপনার যদি পোস্টটি ভালো লেগে থাকে তাহলে সকলের সাথে শেয়ার করার অনুরোধ রইল। এছাড়াও মঙ্গল শোভাযাত্রা সম্পর্কে যদি আপনার আরও কোন তথ্য জানার প্রয়োজন হয়ে থাকে তাহলে নিচের কমেন্ট বক্সে অবশ্যই জানাবেন।

আরও দেখুন

[HD Quality] পহেলা বৈশাখের ছবি, পিকচার, ওয়ালপেপার, ফটো, ইমেজ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

%d bloggers like this: